আজকের বাণী

কেবলমাত্র নীরবতার ভিতর ঈশ্বরের কন্ঠস্বর শোনা যায়।

শিশুদের মধ্যে মানবিক উৎকর্ষতার বিকাশ

শ্রী সত্য সাই বালবিকাশ, ভগবান শ্রী সত্য সাই বাবা প্রবর্তিত একটি  কর্মসূচি, যা বিশ্বব্যপী প্রত্যেক মানুষকে পুনরায়  সক্রিয় ভাবে নৈতিক জীবন যাপন করার জন্য অঙ্গীকারবদ্ধ করে।

ভগবান  বাবা বলেন,” দৃঢ়চিত্ত হওয়ার জন্য অধ্যয়ন করো।তোমার হৃদয়ে দৈবপ্রীতি যেন অবিচল থাকে।শিক্ষার  উদ্দেশ্য শুধু পুঁথিগত  জ্ঞান অর্জন নয়,ব্যবহারিক জীবনে শিক্ষার সঠিক ব্যবহার করাই হল এর প্রকৃত  লক্ষ্য।

পশু পাখীরা পড়াশোনা  না করেই তাদের জীবন কাটিয়ে দিতে পারে। শিক্ষা যেন তোমাদের দৃঢ় এবং সৎ চরিত্রের মানুষরূপে গড়ে তোলে।”। “শিক্ষার পরিণতি চরিত্রগঠনে” এই দিব্যবাণীটিকে ভিত্তি করেই ভগবান শ্রী সত্য সাই বাবা  বালবিকাশ শিক্ষাক্রমের পরিকল্পনা  এবং গোড়াপত্তন করেন।

বালবিকাশ – অর্থ্যাৎ মানবিক উৎকর্ষতার বিকাশসাধন। মানবিক মূল্যবোধ কোনো পাঠ্যপুস্তকের মাধ্যমে শেখানো যায় না। কেউ অন্যকে মানবিক মূল্যবোধ উপহার  দিতেও পারে না। এটি সকল মানুষের মধ্যে সুপ্ত অবস্থায়  থাকে। শ্রী সত্য সাই বালবিকাশ শিশুদের এমন এক উপযুক্ত  প্রতিকূল পরিবেশে বেড়ে উঠতে সাহায্য করে যেখানে ঐ সুপ্ত গুণাবলীর পূর্ণ বিকাশ ঘটে।

 আজকের শিশু  ভবিষ্যৎ সমাজের অগ্রদূত। এই শিশুদের আত্ম জিজ্ঞাসা এবং আত্ম উপলব্ধির  পথে পরিচালিত করা এবং তাদের মধ্যে প্রয়োজনীয় আভ্যন্তরীন পরিবর্তন নিয়ে আসার  উদ্দেশ্যে  শ্রী সত্য সাই সেবা সংস্থা সারা বিশ্বে বালবিকাশ  ক্লাশ পরিচালনা করে।

শ্রী সত্য সাই বালবিকাশের কর্মসূচি এমনভাবে পরিকল্পনা  করা হয়েছে যাতে শিশুরা তাদের জীবনে প্রাথমিক মূল্যবোধগুলি অর্থাৎ সত্য, ধর্ম, শান্তি,প্রেম  এবং অহিংসা তাদের জীবনে অভ্যাস করতে পারে।

 নীরব উপবেশন, প্রার্থনা, গল্প বলা,সমবেত সঙ্গীত এবং দলগত কার্য – এই পাঁচটি শিক্ষণ পদ্ধতির সুনিপুণ ব্যবহারের দ্বারা বালবিকাশ গুরুরা শিশুদের অন্তর্নিহিত শক্তি সম্বন্ধে সচেতন করেন এবং তাদের মানবিক উৎকর্ষতার পথে চালিত করেন৷ এই হল শ্রী সত্য সাই বালবিকাশ কর্মসূচির সংক্ষিপ্তসার।

কেবলমাত্র নীরবতার ভিতর ঈশ্বরের কন্ঠস্বর শোনা যায়।